করোনা আবহে দুর্গাপুরে হিট প্রেস মেসিনের মাধ্যমে প্রিন্টের ব্যবসা এখন রমরমিয়ে চলছে। আগে কাস্টমাইজ ট-শার্ট, টুপি, মাউস প্যাড, সেরামিক জিনিসপত্রের উপর হিট প্রেস মেশিনের সাহায্যে ক্রেতাদের চাহিদা মতো প্রিন্ট করে দেওয়া হতো। কিন্তু করোনা মোকাবিলায় মুখে মাস্ক এখন বাধ্যতামূলক। কিন্তু মাস্ক পরে মানুষ চিনতে বড় অসুবিধার সন্মুখীন হচ্ছেন কমবেশি সকলেই। মাস্ক এখন সকলেরই সঙ্গী হয়ে উঠেছে। তাই নিজের সাজসজ্জার সঙ্গে নিজেকে সকলের সামনে তুলে ধরতে নিজের মাস্কে নিজের মুখের ছবি ছাপাচ্ছেন অনেকে। কেউ নিজের মুখের অর্ধেক ছবি আবার কেউ কেউ নিজের মুখের সম্পূর্ণ ছবি ছাপাচ্ছেন মাস্কে। মাস্ক এখন ফ্যাশানের অঙ্গ হয়ে উঠেছে।

হিট প্রেস প্রিন্টিং মাস্ক ব্যবহার এখন দুর্গাপুরে যেন নতুন ট্রেন্ড এসেছে। শিশু থেকে বড় সকলেরই এখন পছন্দ হিট প্রেস প্রিন্টিং-এর মাধ্যমে মাস্কে নিজের পছন্দমতো ছবি বা স্লোগান ছাপিয়ে নিয়ে সেই মাস্ক ব্যবহার করা। অনেক ব্যক্তি বা সংস্থা আবার এই পদ্ধতিতে মাস্কের উপর নিজেদের বিজ্ঞাপন বা বার্তা ছাপিয়ে নিচ্ছেন। এদিকে করোনা আবহে হিট প্রেস প্রিন্টিং ব্যবসা বাড়ায় খুশি এই ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ব্যবসায়ীরা। তাঁরা জানাচ্ছেন, এখন প্রতিদিন ভালো ব্যবসা হচ্ছে। এই মেশিনে প্রিন্ট করা প্রতি মাস্ক ৫০-৬০ টাকা দামে বিক্রি করে তাঁরা বেশ লাভবান।

Like Us On Facebook