এলাকায় অসামাজিক কার্যকলাপ সহ সিন্ডিকেট রাজের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় এক প্রতিবাদীকে দুর্গাপুরের নুতনপল্লীর রুইদাস পাড়ায় দুষ্কৃতিরা দিনে দুপুরে মারধর সহ গুলি ছুঁড়ে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করে বলে অভিযোগ। এই ঘটনায় দু’জন আহত হয়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে দীর্ঘদিন ধরে নুতনপল্লীর রুইদাস পাড়ায় কিছু দুষ্কৃতি গায়ের জোরে সিন্ডিকেট সহ অসামাজিক কার্যকলাপ চালাচ্ছে। ওই এলাকার এক প্রতিবাদী যুবক তপন সিং প্রতিবাদ করায় শুক্রবার দিনে দুপুরে প্রকাশ্যেই জনা পঞ্চাশেক দুষ্কৃতি লাঠি, রড নিয়ে হামলা চালায়। এই ঘটনা দেখে পাড়ার মহিলারা প্রতিবাদী যুবককে সমর্থন জানিয়ে দুষ্কৃতিদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালে দুষ্কৃতিরা ওই মহিলাদেরও রেয়াত করেনি। তপন বাবুর ভাইপো সুব্রত সিং কাকাকে বাঁচাতে গেলে দুষ্কৃতিরা রড ও লাঠি নিয়ে হামলা চালায় এবং ব্যাপক মারধর করে ও ২ রাউন্ড গুলি চালায় বলে অভিযোগ। কিন্তু গুলিতে কেউ আহত হয় নি। পরে পুলিশ এলে পাড়ার বাসিন্দার দুষ্কৃতিদের দৌরাত্মের প্রতিবাদে পুলিশের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে এবং দুষ্কৃতদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধ করার দাবি জানায়।

আহত সুব্রতকে দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্ত্তি করা হয়েছে। তপন সিং এবিষয়ে দুর্গাপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। রুইদাস পাড়ার বাসিন্দা মমতা নাইডু, মিতা মাহাতোরা বলেন, এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরে দুষ্কৃতিদের দৌরাত্মে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ। একই কথা বলেন তপন ও সুব্রত সিং-এর পরিবার। সুব্রতর মা পুতুল সিং -এর অভিযোগ তাঁর ছেলে ও দেওর সিন্ডিকেট ও অসামাজিক কাজকর্ম বন্ধের প্রতিবাদ করায় প্রহৃত হল। দুষ্কৃতিরা প্রাণে মারতে গুলিও চালায় কিন্তু অল্পের জন্য রক্ষা পেয়ে যায়।

স্থানীয় ১৪ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেসের সম্পাদক রাজু সিং বলেন,”পাড়ায় দীর্ঘদিন ধরে দুষ্কৃতিরাজ চলছে। সিন্ডিকেট বন্ধ করতে গিয়ে তপন ও সুব্রত সিং দুষ্কৃতিদের হাতে আক্রান্ত হল। দুষ্কৃতিরা এলাকায় নির্মল বাংলা অভিযান সফল হতে দিচ্ছে না। থানায় আগেও এবিষয়ে অভিযোগ জানানো হয়েছিল। আমরা কড়া হাতে দুষ্কৃতি দমন করার আবেদন জানিয়েছি পুলিশকে।”

দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ অনির্বাণ বসু বলেন,”কোন গুলি চালানোর ঘটনা ঘটেনি। পাড়ায় একটা ঝামেলা হয়েছিল, পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। এখনও কেউ গ্রেপ্তার হয় নি।”