দুর্গাপুর বাঁচাতে অ্যালয় স্টিল প্ল্যান্টের বিলগ্নিকরণের বিপক্ষেই মত দিলেন ভারতীয় ইস্পাত মজদুর মহাসংঘের শাখা দুর্গাপুর ইস্পাত কর্মচারী সংঘের কর্মীরা। সংঘ পরিবারের শ্রমিক সংগঠনের দুর্গাপুর শাখার কর্মীরা চান কারখানা বাঁচাতে অ্যালয় স্টিল প্ল্যান্টের আধুনিকিকণন হোক তাতে প্রয়োজনীয় একাংশের বিলগ্নিকরণ করতেই পারে কেন্দ্রীয় সরকার কিন্ত সেলের এই উৎকৃষ্ট মানের ইস্পাত কারখানা যদি সম্পূর্ণ ভাবে বিলগ্নিকরণ করে সরকার তাহলে সেটা শ্রমিক স্বার্থ বিরোধী হবে। কেন্দ্র সরকারের সঙ্গে স্পর্শকাতর বিষয়টি নিয়ে দলীয় শীর্ষনেতাদের আলোচনার অনুরোধ জানান দুর্গাপুর ইস্পাত কর্মচারী সংঘের সদস্যরা। এ-জোনের রাজেদ্র ভবনে অনুষ্ঠিত দু’দিনের ২২ ও ২৩ এপ্রিল ভারতীয় ইস্পাত মজদুর মহাসংঘের সর্বভারতীয় এক্সিকিউটিভ বোর্ডের মিটিং-এ দলীয় শীর্ষনেতাদের অ্যালয় স্টিল প্ল্যান্ট সহ সালেম ও ভদ্রাবতী নিয়েও একই অনুরোধ রাখেন ইস্পাত কর্মচারী সংঘের সদস্যরা। দুর্গাপুর ইস্পাত কর্মচারী সংঘের সদস্যরা এদিনের মিটিং এ দলের শীর্ষ নেতাদের বলেন আমরা চাই দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানাগুলি বন্ধ না করে আধুনিকিকরণ করতে প্রয়োজনীয় একাংশের বিলগ্নিকরণ করা হোক কিন্ত তাতে কারখানা ও শ্রমিক উভয়েরই স্বার্থ রক্ষিত হবে কিন্ত সম্পুর্ণভাবে বিলগ্নিকরণ করলে সেটা শ্রমিক স্বার্থ বিরোধী হবে। দুর্গাপুর শাখার কর্মীরা এদিনের সভায় বলেন তারা এমএএমসি’র মত অ্যালয় স্টিল প্ল্যান্ট বন্ধ হয়ে যাক তারা তা কোনভাবেই চান না। একদিকে কারখানার আধুনিকরণ করতে পর্যাপ্ত বিনিয়োগ করা হোক লাভের মুখ দেখতে ও অপর দিকে শ্রমিক ছাঁটাই না করে উভয় স্বার্থ  রক্ষা করা হোক শ্রমিক স্বার্থে। এদিনের দলীয় সভায় উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় মজদুর সংঘের সর্বভারতীয় সহসভাপতি ডঃ বসন্ত কুমার রাই এবং সর্বভারতীয় সাধারন সম্পাদক দেবেন্দ্র পান্ডে। শীর্ষ দুই নেতা বিষয়টি দেখার আশ্বাস দেন। এদিনের দলের এক্সিকিউটিভ বোর্ডের মিটিং-এ দলের দুই শীর্ষনেতাই আত্মসমালোচনা করে শ্রমিক স্বার্থ না দেখার জন্য বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতাদেরই দায়ী করেন। কেবল মাত্র এক পক্ষ নয় কারখানা ও শ্রমিক উভয় পক্ষকে বাঁচিয়েই শ্রমিক সংগঠন করতে হবে দলীয় শ্রমিকদের বলেও এদিন দুই নেতাই মত প্রকাশ করেন দুর্গাপুরে এসে। ভারতীয় মজদুর সংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ধরমচাঁদ মিশ্র বর্ধমান ডট কমকে বলেন, ‘শনিবারের এক্সিকিউটিভ বোর্ডের মিটিং এ আমরা দুর্গাপুর শাখার দলীয় সদস্যরা অ্যালয় স্টিল প্ল্যান্ট বাঁচানোর জন্যই সম্পূর্ণভাবে বিলগ্নিকরণের বিরুদ্ধেই শীর্ষনেতাদের কাছে মত পোষন করেছি। আমরা চাই কারখানায় আধুনিকিকরণ করার প্রয়োজনে একাংশের বিলগ্নিকরণ হোক তবে কখনই শ্রমিক স্বার্থের বিরুদ্ধে নয়। দুই দিনের সংঘ পরিবারের শ্রমিক সংগঠনের রুদ্ধদ্বার বৈঠকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার শ্রমিক নেতারা অংশ নেন। রবিবার দলীয় সভায় সংগঠন সহ অন্যান্য বিষয় গুলিও আলোচিত হয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হবে বলে জানা গেছে।