কাউকে দুর্গাপুর মিশন হাসপাতালে চাকরি দেওয়ার নাম করে মোটা টাকা হাতানো। আবার কাউকে দুর্গাপুর দিল্লী পাবলিক স্কুলে চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা হাতানো। আবার কাউকে কাউকে জি-সারেগামাপা বা ডান্স বাংলা ডান্স প্রোগ্রামে সুযোগ করে দিতে টাকা নিত দুর্গাপুর সগড়ভাঙার জেপি এভিনিউর কীর্তিমান শান্তনু দাস। জানা গেছে, শান্তনু দাস নিজে একজন ইলেকট্রিক মিস্ত্রি।

অভিযোগ, দুর্গাপুরের বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে প্রতারণার কাজ বেশ জমিয়ে চালাচ্ছিল শান্তনু দাস। সোমবার হাতে নাতে ধরে স্থানীয় বাসিন্দারা কোকওভেন থানার পুলিশের হাতে শান্তনু দাসকে তুলে দিল।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, মানুষের বেকারত্বের সুযোগ নিয়ে এই প্রতারক দুর্গাপুরের বড় বড় প্রতিষ্ঠানের নামে চাকরি পাইয়ে দেবার নামে বেকার যুবক যুবতীদের কাছ থেকে মোটা টাকা নিত। অভিযোগ বেশ কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয় এই প্রতারক। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, যে সকল প্রতিষ্ঠানগুলিতে শান্তনু দাস চাকরি দেবার নাম করে টাকা নিয়েছে বলে জানা গেছে ওই সব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শান্তনু দাসের কোন সম্পর্ক নেই। বিষয়টি জানতে পেরে মঙ্গলবার স্থানীয় মানুষ শান্তনুর বাড়িতে চড়াও হয়। পুলিশ অভিযুক্তকে আটক করেছে।

Like Us On Facebook