তীব্র গরমে গত কয়েকদিন ধরেই অস্থির হয়ে উঠেছে দুই বর্ধমান সহ রাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চলের জনজীবন। ফণীর প্রভাব কাটতেই মেঘলা আবহাওয়া সরে গিয়ে বিশেষ করে বর্ধমান শিল্পাঞ্চল জুড়ে শুরু হয়েছে প্রবল দাবদাহ। সোমবার থেকেই একটু একটু করে তাপমাত্রা বাড়তে থাকে। বুধবার দুপুরে আসানসোল ও দুর্গাপুরের তাপমাত্রা পৌঁছয় ৪২ ডিগ্রিতে। প্রবল দাবদাহে শিল্পাঞ্চল মানুষের নাভিশ্বাস উঠছে। সূর্য যখন মধ্যগগনে, খুব প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে সেভাবে কাউকে বের হতে দেখা যাচ্ছে না। বাড়ি থেকে বের হলেও পথচলতি মানুষকে মুখে কাপড় বেঁধেই বের হতে হচ্ছে।

গরমের হাত থেকে বাঁচতে সরকারি স্কুলগুলিতে ইতিমধ্যেই পড়ুয়াদের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু শিল্পাঞ্চলের বেসরকারি স্কুলগুলি এখনও ছুটি ঘোষণা করেনি। তীব্র গরমে যে সমস্ত ট্রাফিক পুলিশ কর্মীরা রাস্তায় ডিউটি করছেন তাঁদের ছাতা সহ প্রয়োজনীয় গ্লুকোজ ও পানীয় জল দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিভিন্ন রাস্তায় পথচলতি তৃষ্ণার্ত মানুষের জন্য জলছত্রের ব্যবস্থা করা হয়েছে। শিল্পাঞ্চলের বিভিন্ন কলকারখানায় শ্রমিক-কর্মচারীদের তীব্র গরমে প্রয়োজনীয় পথ্য দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। দাবদাহের হাত থেকে বাঁচতে পথ চলতি মানুষজন ঠান্ডা পানীয়, আখের রস বা আইসক্রীমের দোকানে ভীড় করছেন। গরমে বাড়িতে জল ঠান্ডা রাখতে মাটির কুঁজো বা জালার পসরা নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় হাজির হয়েছেন বিক্রেতারা। আপাতত দক্ষিণবঙ্গে কালবৈশাখীর কোন খবর নেই। তাই আগামী কয়েকদিন তাপমাত্রা আরও বাড়ার সম্ভাবনা আছে বলে জানা গেছে।

বর্ধমান ডট কম-এর খবর নিয়মিত আপনার ফেসবুকে দেখতে চান?



Like Us On Facebook