আসানসোল-শিয়ালদহ ইন্টারসিটি এক্সপ্রেসের কামরার বাথরুম ফিটিংস চুরি করে আরপিএফের হাতে ধরা পড়ল এক ব্যক্তি। ২ জুলাই নতুন সাজে সজ্জিত হয়ে যাত্রা শুরু করেছিল আসানসোল-শিয়ালদহ ইন্টারসিটি এক্সপ্রেস। এরপর থেকে প্রায়ই কামরার বিভিন্ন জিনিস চুরি যাচ্ছিল। দামি স্টিলের বেসিন ও স্টিলের ট্যাপ সহ বাথরুমের বিভিন্ন জিনিস খুলে নিচ্ছিল চোরেরা। চোর ধরতে সক্রিয় হয় আরপিএফ। আসানসোল-শিয়ালদহ ইন্টারসিটি এক্সপ্রেসে নজরদারি শুরু করে সাদা পোশাকের আরপিএফ কর্মীরা।

রেল সুত্রে জানা গেছে, সোমবার আসানসোল-শিয়ালদহ ইন্টারসিটি এক্সপ্রেসে সাদা পোশাকে থাকা আরপিএফ কর্মীরা দেখেন রানিগঞ্জ স্টেশন থেকে এক ব্যক্তি ট্রেনে উঠে বাথরুমে চলে যান। এরপর ট্রেন অন্ডাল স্টেশন ছাড়ার পর ওই ব্যক্তি বাথরুম থেকে বের হয়ে আসেন। সন্দেহ হওয়ায় তার সঙ্গে থাকা ব্যাগ তল্লাশি করে আরপিএফ কর্মীরা ওই বাথরুম থেকে খুলে নেওয়া অ্যাকসেসারিজ পায়। এরপর আরপিএফ কর্মীরা অভিযুক্তকে আটক করে দুর্গাপুরে স্টেশনে নেমে যায়। দুর্গাপুর আরপিএফ দফতরে অভিযোগ লিপিবদ্ধ করা হয়। চুরি করা জিনিস বাজেয়াপ্ত করে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়। জানা গেছে ধৃত ব্যক্তি রানিগঞ্জের বাসিন্দা।

উল্লেখ্য, ২ জুলাই নতুন সাজে সজ্জিত হয়ে যাত্রা শুরু করেছিল আসানসোল-শিয়ালদহ ইন্টারসিটি এক্সপ্রেস। আসানসোল ডিভিশনের ডিআরএম পিকে মিশ্র বিশেষ উদ্যোগ নিয়ে যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যে ট্রেনটিকে নতুনভাবে সাজিয়ে তোলার ব্যবস্থা করেছিলেন। নতুনভাবে কামরা গুলিকে রঙ করার পাশাপাশি লাগানো হয়েছিল এলইডি লাইট, নতুন ফ্যান, যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যের কথা মাথায় রেখে ইন্টারসিটির সিটগুলিও বদলে ফেলা হয়েছিল। বসানো হয়েছিল আধুনিক বায়ো টয়লেট। মেঝেয় পাতা হয়েছিল বিশেষ ধরণের ম্যাট। কামরাগুলির ভিতরের অংশ বিভিন্ন ছবি দিয়ে সাজিয়ে তোলা হয়েছিল।

Like Us On Facebook