কলকাতা হাইকোর্টের বয়স ১৫০ বছর। ২০০ বছর একটা বিরাট সময়। ২০০ বছর আগে ট্রেন, প্লেনও ছিল না। অটোমোবাইল বিপ্লবও হয়নি। কিন্তু এই জেলায় যে বিচারের একটা ব্যবস্থা ছিল তা জেনে বর্ধমান বার অ্যাসোসিয়েশনের প্রাক দ্বিশতবর্ষ উদযাপনের অনুষ্ঠানে এসে বিস্ময় প্রকাশ করে গেলেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব বন্দোপাধ্যায়।

এদিন তিনি বার ও আইনজীবীদের মধ্যে যেমন সু সম্পর্ক রাখার কথা বললেন, তেমনি কেবলমাত্র ব্যবসা নয়, একটা সেবার মানসিকতা নিয়েও আইনজীবীদের কাজ করার আহ্বান জানালেন। এদিন বর্ধমান সংস্কৃতি লোকমঞ্চের এই অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে হাজির ছিলেন জেলা জজ বিভাসরঞ্জন দে, চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট রতন কুমার গুপ্তা, জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব, জেলা পুলিশ সুপার কুণাল আগরওয়াল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিস পুষ্পা, বর্ধমান দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ। হাজির ছিলেন অন্যান্য বিচারপতি সহ আইনজীবীরাও।

এদিন বিচারপতি সঞ্জীব বন্দোপাধ্যায় বলেন, অপরাধীদের সঙ্গে পাল্লা দিতে গিয়ে বিচার ব্যবস্থা একটা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। ভারতবর্ষের জন সংখ্যার নিরিখে যেখানে ১ লক্ষ ৭০ হাজার বিচারক থাকার কথা সেখানে বর্তমানে বিচারক রয়েছেন মাত্র ১৭ হাজার। যা খুবই কম। যদিও তিনি জানান, বিভিন্ন রাজ্যেই জুডিসিয়াল অ্যাকাডেমিগুলি বিচার ব্যবস্থার উন্নতির জন্য কাজ করছে। বর্ধমান বার অ্যাসোসিয়েশন সূত্রে জানা গেছে, এই ২০০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান চলবে সারা বছর ধরেই বিভিন্নভাবে।

Like Us On Facebook