সকালে কখনও মন্ত্রীকে দেখা গেল ঝাঁটা হাতে, আবার কখনও কোদাল-বেলচা নিয়ে আবার কখনও বা দেখা গেল স্প্রে করতে। অন্যদিকে জেলাশাসক তখন ব্যস্ত হাতে গ্লাভস পরে নোংরা পরিষ্কার করতে আবার কখনও বা জানালা দিয়ে রোগীর আত্মীয়দের বললেন জানালা দিয়ে নোংরা না ফেলার জন্য। সকালে বর্ধমান হাসপাতালে দেখা গেল এমনই চিত্র।

শুক্রবার মন্ত্রী স্বপন দেবনাথের সঙ্গে সাফাই অভিযানে সামিল হয়েছিলেন জেলাশাসক বিজয় ভারতী, সভাধিপতি শম্পা ধাড়া, সহ সভাধিপতি দেবু টুডু, হাসপাতালের ডেপুটি সুপার সহ জেলা পরিষদের কর্মাধক্ষ্য ও বর্ধমান পৌরসভার বিদায়ী কাউন্সিলারবৃন্দ।

নোংরা পরিষ্কারের পাশাপাশি তাঁরা আবেদন করেন হাসপাতালের ভিতর নির্দিষ্ট স্থানেই যেন সকলে নোংরা ফেলেন। মন্ত্রী এদিন বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় মিশন নির্মল বাংলা কর্মসূচির অধীনে জেলার সমস্ত হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলিতে নিয়মিত সাফাই অভিযানে সব জনপ্রতিনিধি সামিল হচ্ছেন। সাধারণ মানুষকে পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য অনুপ্রাণিত করতে এবং সচেতন করতেই এই ধরণের সাফাই অভিযান। যদিও রোগীর আত্মীয়রা জানান, মানুষকে আগে সচেতন হতে হবে। যেমন নিজে পরিষ্কার থাকে পাশাপাশি সমাজকে পরিষ্কার রাখার জন্য নিদিষ্ট জায়গায় নোংরা ফেলতে হবে। তাঁদের অভিযোগ, আগের চেয়ে হাসপাতাল এখন অনেক পরিষ্কার থাকলেও আজ আধিকারিকরা আসায় সর্বত্র একটু বেশী পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন।

Like Us On Facebook