ফাইল চিত্র

শনিবার ঝটিকা সফরে বর্ধমানে দুটি বৈঠক সেরে গেলেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। এদিন তিনি সকালে এসে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেন জেলা খাদ্য দপ্তরে। সেখানে খাদ্য দপ্তরের আধিকারিকদের নিয়ে চলতি সরকারী সহায়ক মূল্যে ধান কেনা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

জেলা খাদ্য নিয়ামক দেবমাল্য বসু জানিয়েছেন, খাদ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সহায়ক মূল্যে ধান কেনা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। চলতি বছরে সহায়ক মূল্যে ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছিল ৩ লক্ষ ৯০ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু গত খরিফ মরশুমে ধান কেনা গেছিল ২ লক্ষ ১ হাজার মেট্রিক টন। তিনি জানিয়েছেন, জেলার ক্ষেত্রে এই সংগৃহীত ধানেই প্রয়োজন মিটলেও আপদকালীন পরিস্থিতিতে প্রয়োজনে অন্য জেলায় চাল পাঠাতে হলে প্রয়োজন হবে আরও ধান সংগ্রহের। এদিন খাদ্যমন্ত্রী চলতি বোরো মরশুম থেকেই এই ধান সংগ্রহের নির্দেশ দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, বোরো ধান ওঠার সময় শুরু হয়ে গেছে। আগামী ২ সপ্তাহের মধ্যেই বোরো ধান উঠতে শুরু করবে। খাদ্যমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন সরকারী সহায়ক মূল্যে এই নতুন ধান কিনে নিতে। গত খরিফ মরশুমে যেভাবে বিভিন্ন সংস্থা এবং সমবায়গুলিকে দিয়ে ধান কেনা হয়েছে সেই একই পদ্ধতিতে এই ধান কেনার নির্দেশ দিয়েছেন। জেলা খাদ্য নিয়ামক জানিয়েছেন, যেহেতু গত খরিফ মরশুম তথা চলতি আর্থিক বছরে মোট ৩ লক্ষ ৯০ হাজার মেট্রিক টন ধান কেনার কথা থাকলেও এখনও প্রায় ১ লক্ষ ৮৯ হাজার মেট্রিক টন ধান কেনা লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় পিছিয়ে রয়েছে তাই মন্ত্রীর নির্দেশে চলতি বোরো মরশুম থেকেই ওই বকেয়া ধান কেনার জন্য খুব শীঘ্রই তাঁরা প্রস্তুতি শুরু করে দেবেন। যদিও সামনেই পঞ্চায়েত ভোট। কিন্তু এই কাজে পঞ্চায়েত ভোটে কোনো প্রভাব পড়বে না বলেই তিনি
জানিয়েছেন।

Like Us On Facebook