রাজ্যে সম্প্রতি হয়ে যাওয়া পুরসভা নির্বাচনে দেখে নিয়েছি তৃণমূল কিভাবে সন্ত্রাস করে। পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপি রাজ্যের সব আসনে প্রার্থী দেবে। পঞ্চায়েত নির্বাচনে সন্ত্রাস রুখবই। তৃণমূল সন্ত্রাস চালালে বিজেপি কর্মীরাও পাল্টা সন্ত্রাস চালাবে। রবিবার পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরের জাঙ্গীরপুর গ্রামে আয়োজিত জনসভায় বিজেপি দলের এই সিদ্ধান্তের কথা স্পষ্ট করলেন রাজ্য বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিনের সভায় জেলা বিজেপি পর্যবেক্ষক অনল বিশ্বাস, জেলা বিজেপি সভাপতি সন্দীপ নন্দী প্রমুখরা উপস্থিত ছিলেন। এই সভায় সিপিআইএম-এর বেশকিছু কর্মী ও নেতা বিজেপিতে যোগদান করেন জয় বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের হাতে বিজেপির পতাকা তুলে দেন ।

এদিন জঙ্গীপুরের সভায় প্রথম থেকেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে সুর চড়ান জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন সিপিএম ক্ষমতা থেকে সরে যাওয়ার পর মাটির নিচ থেকে শুধু কঙ্কাল বেরিয়েছিল। আর তৃণমূল চলে যাওয়ার পর মাটির নিচ থেকে শুধু টাকা বেরোবে। মোদিজীর নোট বন্দির কারণে ওই সব টাকা অচল টাকা হয়ে গেছে। টাকার শোকে তৃণমূল নেতারা কালা দিবস করছে। তৃণমূল আমলে বাংলাটা একেবারেই নষ্ট হয়ে গেছে ।

মুখ্যমন্ত্রীর লণ্ডন যাওয়া প্রসঙ্গে জয় বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, দিদি ইতিহাস পড়েন না। উনি জানেন না সিস্টার নিবেদিতার জন্ম লণ্ডনে নয় আয়ায়ল্যান্ডে। লন্ডন থেকে দিদি এরাজ্যে শিল্পপতি আনবেন বলা হচ্ছে। কিন্তু যে রাজ্যে ডেঙ্গুর মৃত্যু মিছিল চলছে সেই রাজ্যে বিদেশী লিল্পপতিরা বিজনেস করতে আসবে এটা পাগলেও বিশ্বাস করবেনা। দিদি লণ্ডন থেকে ভালো কিছু শিখে আসবেন না। শুধু ওখানকার রাস্তার আলো দেখে আসবেন। ওই রকম আলো কলকাতায় বসানোর ব্যবস্থা করার পরিকল্পনা নেবেন। আর ভাইপো কলকাতায় ওই বাতি বসানোর টেন্ডার পাবে।

মুকুল রায় প্রসঙ্গে জয় বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, আমাদের দলের সর্বোচ্চ নেতৃত্ব মুকুল রায়কে বিজেপি দলে নিয়েছে। দলের সিদ্ধান্ত সবাই মেনে নিয়েছে। মুকুল রায়কে নিয়ে এখন আমাদের বিজেপির চাইতে তৃণমূলের মাথা ব্যাথা সবথেকে বেশী। কাঁচড়াপাড়ার যে কাঁচা ছেলেটা বাংলায় তৃণমূলকে প্রতিষ্ঠা করেছিল সেই মুকল রায় এখন বাংলায় বিজেপিকে প্রতিষ্ঠা করার শপথ নিয়েছে। মুকুল বিজেপিতে আসার পর থেকে তৃণমূল এখন শঙ্কিত বলে জয় বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেন।

Like Us On Facebook