দুর্গাপুরের পানাগড়ে ২ নং জাতীয় সড়কে ফের পথ দুর্ঘটনা ঘটল। এবার একটি স্কুলবাস ও প্রাইভেট কারের সংঘর্ষে ১৭ জন স্কুল ছাত্র-ছাত্রী আহত হয়। স্থানীয় মানুষ দুর্ঘটনার পর ক্ষোভে ফেটে পড়ে জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে অবরোধকারীরা অবরোধ তুলে নেন। জানা গেছে, আহতদের দুর্গাপুর মহকুমা হাসপতালে ও রাজবাঁধের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

২ নং জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের কাজ চলছে দীর্ঘদিন ধরে। পানাগড় বাইপাশে একদিকে ধ্বসের কারণে অন্য দিকে কোটা গ্রামে পুরানো রেল ব্রিজ সংস্কারের কাজ চলছে ফলে একটি লেনই ভরসা যান চলাচলের। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দুর্গাপুরের দিক থেকে পানাগড় রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যাপীঠের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে একটি স্কুলবাস বুদবুদের দিকে আসছিল। কলকাতা থেকে দুর্গাপুর অভিমুখে একটি মহিন্দ্রা এক্সইউভি গাড়ি যাচ্ছিল। পানাগড় রেলব্রিজের উপর দ্রুত গতিসম্পন্ন এক্সইউভি গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে স্কুল বাসটির সামনে সজোরে ধাক্কা মারে। এই মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৭ জন আহত হয়। এর মধ্যে এক্সইউভির চালক ও তিন ছাত্র-ছাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। বুদবদ থানার পুলিশ এসে আহতদের স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতাল ও দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করে। আহতদের উদ্ধারে স্থানীয় বাসিন্দারাও এগিয়ে আসেন। আহত ছাত্র-ছাত্রীরা সকলেই ধরলা গ্রামের বাসিন্দা। স্থানীয় ধরলা ও কোটা গ্রামের বাসিন্দারা জাতীয় সড়কে ক্রমাগত দুর্ঘটনা রোধে আন্ডার পাশের দাবিতে জাতীয় সড়ক অবরোধ করলে বেশ কিছুক্ষণ পর পুলিশের আশ্বাসে অবরোধ উঠে যায়।

Like Us On Facebook