বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগে জোর করে ঢুকতে চাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে ব্যাপক গোলমাল হল রোগীপক্ষের লোকজনদের। এই এঘটনায় ৩ জন নিরাপত্তারক্ষী গুরুতর আহত হয়েছেন। নিরাপত্তাকর্মীদের মারধোর করার ঘটনায় ২ জন রোগীপক্ষের লোকজনকে গ্রেপ্তার করেছে বর্ধমান থানার পুলিশ। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ও আতঙ্ক ছড়িয়েছে বর্ধমান হাসপাতাল জুড়ে। শুক্রবার সকালে ৩ জন নিরাপত্তারক্ষী রোগীপক্ষের লোকজনের হাতে ব্যাপকভাবে মার খাওয়ার পর নিরাপত্তারক্ষীরাই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে শুরু করেছেন। জানা গেছে, শুক্রবার সকাল ৬টা নাগাদ হাসপাতালের শিশু বিভাগে কয়েকজন রোগীপক্ষের লোকজন জোর করে ওয়ার্ডে ঢুকতে যান। সেই সময় শিশু বিভাগের গেটে নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন ৩ জন নিরাপত্তা কর্মী। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞা সম্পর্কে রোগীপক্ষদের তাঁরা জানিয়ে দিলে শুরু হয় বচসা। এরপরই বচসা থেকে রোগীপক্ষের লোকজনদের সঙ্গে শুরু হয় ধস্তাধস্তি। নিরাপত্তা রক্ষীদের অভিযোগ, এই সময় রোগীপক্ষের লোকজন তাদের বেধড়ক মারতে শুরু করে। মারের চোটে কেশব সামন্ত নামে এক নিরাপত্তা রক্ষীর হাত ভেঙে যায়। মাথায় গুরুতর আঘাত পান তরুণ ঘোষ নামে অপর এক নিরাপত্তা রক্ষীও। এছাড়াও মাথায় অল্প আঘাত পান দুলাল নামে আরও এক নিরাপত্তাকর্মী। সকাল ৬টা নাগাদ এই হামলার খবর পেয়ে হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্প থেকে ছুটে আসে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকেই পুলিশ সেখ আমজাদ এবং স্বর্ণেন্দু হাজরা নামে ২জনকে আটক করে। এদের মধ্যে সেখ আমজাদের বাড়ি বর্ধমান শহরের বাহির সর্বমঙ্গলাপাড়ায়। অপরজনের বাড়ি বীরভূমের মুরারই থানার রাজগ্রামে। পরে পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করে।

Like Us On Facebook